1. admin@coxtimes.com : admin :
শিরোনাম :
সচেতনতায় পুলিশ মাঠে…. করোনার প্রাদুর্ভাব বাড়লেও ঈদগাঁওতে বাড়েনি মানুষের মাঝে সচেতনতা ঈদগাঁওর জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মাঠ পর্যায় ইউএনও ছয় দফা দাবীতে সিবিআইইউ শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন। ইসলামাবাদে গভীর রাতে সশস্ত্র হামলাঃনগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটের অভিযোগ! পশ্চিম টেকপাড়া সমাজকল্যাণ পরিষদ কর্তৃক শহর পুলিশ ফাঁড়ি কক্সবাজার এর সাথে মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঈদগাঁও প্রেস ক্লাবের জরুরী সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদগাঁওতে পরিবেশ আন্দোলনের মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত। ঈদগাঁওর বাঁশঘাটায় তিনটি দোকান সিলগালা বাঁশখালী ছনুয়ার মানুষের যোগাযোগ সড়কের বেহাল দশা অবসানের পথে ইসলামাবা‌দের আ‌লো‌চিত জবর মুল্লুক হত্যা মামলার আসামী‌দের রিমা‌ন্ডে নি‌তে গ‌ড়িম‌সি পু‌লি‌শের ! ঈদগাঁও বাজা‌রে সড়‌কের উপর দোকান নির্মাণ, ভূ‌মি অ‌ফি‌সের নি‌ষেধাজ্ঞা ইসলামের প্রচার-প্রসারে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি: শেখ হাসিনা।

পাখির জন্য বাসা বাঁধলেন কক্সবাজারের ডিসি

  • আপডেট টাইম: Sunday, October 4, 2020
  • 131 বার পড়া হয়েছে

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ

২০২০পাখির জন্য বাসা বাঁধলেন কক্সবাজারের ডিসি
কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন সত্যি একজন প্রাণ-প্রকৃতি প্রেমিক মানুষ। সারাক্ষণ কাজ করতে ভালোবাসেন। আগাগোড়া উপকারী এই কর্মকর্তা এবার নিজের হাতে পাখির বাসা স্থাপন করে প্রকৃতি প্রেমের আরেক দৃষ্টান্ত দেখালেন।

রোববার (৪ অক্টোবর) সকালে নিজের বাংলোতে পাখির বাসা স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।

পরিবেশ বিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’ কক্সবাজারে ‘গাছে গাছে নিশ্চিত করি পাখির নিরাপদ আবাস’ শ্লোগানে ১০ হাজার পাখির বাসা স্থাপনের ব্যতিক্রমী এই কর্মসূচি গ্রহণ করেন। যা কক্সবাজারের জন্য নতুন দৃষ্টান্ত।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার, মাসুদুর রহমান মোল্লাসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

সংগঠনটির প্রধান নির্বাহী রাশেদুল মজিদ বলেন, সাগর-নদী-ঝর্ণা-পাহাড়-গাছগাছালি সমৃদ্ধ প্রকৃতির অপরূপ কক্সবাজারে আগে গাছে গাছে পাখির বিচরণ ছিল দেখার মতো। কিন্তু নানা কারণে সেই সব পাখি এখন আর দেখা যায় না। যার কারণে পাখির সংখ্যা বাড়ানো ও বিলুপ্ত প্রায় পাখি ফিরিয়ে আনতে গাছে গাছে পাখির নিরাপদ বাসা নিশ্চিত করতে কাজ করছি।
পর্যায়ক্রমে পুরো কক্সবাজারের সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালত, বাসস্থান, মসজিদ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কবরস্থান, বাগানবাড়ি, রাস্তার পাশের গাছে গাছে তা ছড়িয়ে দেয়া হবে। এসব পাখির বাসা রক্ষণাবেক্ষণ এবং পাখি শিকার বন্ধেও আমরা কাজ করবো।

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, পরিবেশ প্রকৃতি রক্ষায় পাখির ভূমিকা অপরিসীম। পরিবেশ প্রকৃতির জন্য কক্সবাজার এক অনবদ্য ভাণ্ডার। কিন্তু নানা কারণে পাখির সংখ্যা কমে যাচ্ছে। পাখির প্রতি ভালোবাসার অংশ হিসেবে ‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’ এর এই উদ্যোগ কক্সবাজারকে পাখির অভয়ারণ্যে পরিণত করবে বলে আশা রাখছি। এমন সৃষ্টিশীল কাজে সবসময় পাশে থাকবে বলেও জানান জেলা প্রশাসক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
Customized BY NewsTheme