1. admin@coxtimes.com : admin :
শিরোনাম :
সচেতনতায় পুলিশ মাঠে…. করোনার প্রাদুর্ভাব বাড়লেও ঈদগাঁওতে বাড়েনি মানুষের মাঝে সচেতনতা ঈদগাঁওর জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মাঠ পর্যায় ইউএনও ইসলামাবাদ ইউনিয়ন আ,লীগের উদ্যোগে ৭২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থীদের দলীয় পদ পদবীর বিষয়ে অসনি সংকেট ছয় দফা দাবীতে সিবিআইইউ শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন। ইসলামাবাদে গভীর রাতে সশস্ত্র হামলাঃনগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটের অভিযোগ! পশ্চিম টেকপাড়া সমাজকল্যাণ পরিষদ কর্তৃক শহর পুলিশ ফাঁড়ি কক্সবাজার এর সাথে মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঈদগাঁও প্রেস ক্লাবের জরুরী সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদগাঁওতে পরিবেশ আন্দোলনের মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত। ঈদগাঁওর বাঁশঘাটায় তিনটি দোকান সিলগালা বাঁশখালী ছনুয়ার মানুষের যোগাযোগ সড়কের বেহাল দশা অবসানের পথে ইসলামাবা‌দের আ‌লো‌চিত জবর মুল্লুক হত্যা মামলার আসামী‌দের রিমা‌ন্ডে নি‌তে গ‌ড়িম‌সি পু‌লি‌শের !

সেই একই চিত্র গিবসন একাদশের ব্যাটিংয়ের

  • আপডেট টাইম: Tuesday, October 6, 2020
  • 71 বার পড়া হয়েছে

খেলা ডেস্কঃ

ফিটনেস ট্রেনিং হয়েছে মোটামুটি লম্বা সময় ধরেই। তবে ব্যাট ও বলের অনুশীলন হয়েছে তুলনামূলক কম। সবচেয়ে বড় কথা, ম্যাচ প্র্যাকটিস নেই ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে। অনেক দিন খেলার বাইরে। তাই দীর্ঘ সময় উইকেটে থাকার ধৈর্য্য, টেম্পরামেন্ট সবই নতুন করে ঝালাই করতে হচ্ছে। তাই চরম মন্তব্য করার প্রশ্নই আসে না। তারপরও দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের স্কোরলাইন যেন সেই পুরনো বার্তাই দিচ্ছে।

হাতে গোনা অল্প ক’জন ছাড়া বেশিরভাগ ব্যাটসম্যানেরই দীর্ঘ সময় উইকেটে থাকার ধৈর্য্য আর এবং লম্বা ইনিংস খেলার টেম্পরামেন্ট কম। প্রতিপক্ষ বোলিং যেমনই থাকুক না কেন, স্কোরলাইন ঘুরেফিরে আড়াইশো কিংবা ২৬০-২৭০ এর আশপাশে।

প্রথম দুই দিনের খেলায় পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসনের দল করেছিল ২৩০। পাল্টা ব্যাটিংয়ে নেমে ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুকের নামের একাদশের সংগ্রহ ছিল ২৪৮। তাও অধিনায়ক মুমিনুল হকের সেঞ্চুরি আর মোহাম্মদ মিঠুনের হাফ সেঞ্চুরির বদৌলতে।

আজ ৫ অক্টোবর সোমবার শুরু হওয়া দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথম দিনের চালচিত্রও অনেকটাই তাই। দিন শেষে নাজমুল হোসেন শান্তর দলের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২৪৮।

আগেই জানা, চা বিরতির আগে জোড়া ফিফটি উপহার দিয়েছিলেন ওপেনার ইমরুল কায়েস আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। সকালে তাসকিনের দ্রুত গতি আর সুইংয়ের মুখে ওপেনার সাইফ হাসান আর অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত খুব অল্প সময় ও সংগ্রহে ফিরে গেলেও ইমরুল কায়েস (৫৯) আর রিয়াদ ৫৬ (১১৬ বল, পাঁচটি চার) শুরুর ধাক্কা সামলে দিয়েছিলেন। তাদের দু’জনার জুটিতে ৮০ রান যোগ হবার পর মনে হচ্ছিল স্কোরলাইন লম্বা চওড়া হবে। সেই পথে হেঁটে লিটন (৪৪, ৬৬ বলে, ৩ বাউন্ডারি), সৌম্য (৫২ বলে ২৬) আর মোসাদ্দেকের সামনে ছিল অনেকটা পথ এগিয়ে যাওয়ার অবারিত সুযোগ; কিন্তু ওই যে পুরনো রোগ, সেট হয়ে উইকেট দিয়ে আসা, লিটন দাস আর সৌম্য দু’জনই সেই কাজটি করলে আবার রানের চাকা স্লথ হয়ে যায়।

এর মধ্যে বাঁ-হাতি সৌম্য সাইফউদ্দিনকে বোলার্স ব্যাকড্রাইভ খেলতে গিয়ে কট অ্যান্ড বোল্ড হয়েছেন। আর লিটন দাস ফ্লিক করতে গিয়ে শর্ট মিডউইকেটে ক্যাচ দিয়েছেন সাদমানের হাতে। প্রথম ম্যাচের মত নিচের দিকে আবার মড়ক; অফস্পিনার নাইম হাসান (৮) ও পেসার ইবাদত (০) অল্প সময়েই সাজঘরে। দিন শেষে মোসাদ্দেক সৈকত (৫৮ বলে ২৯) আর রুবেল হোসেন (০) নটআউট।

প্রথম ম্যাচের প্রথম দিনের সাথে এ ম্যাচের প্রথম দিনের একদম শেষ দিককার চালচিত্র মিলে গেছে একদমই। সেদিনও অনিয়মিত স্পিনার মিঠুন দুই উইকেট দখল করেছিলেন, আজও মিঠুন পড়ন্ত বিকেলে নাইম আর ইবাদতকে ফিরিয়ে দিয়েছেন।

রায়ান কুক একাদশের বোলারদের সবাই নিয়ন্ত্রিত বোলিং করেছেন। তবে খালেদ আর আল আমিন থাকার পরও এখনো টেস্ট অভিষেক না হওয়া সাইফউদ্দীনকে দিয়ে নতুন বলে বোলিং করানোর তেমন কোন কার্যকরিতা পাওয়া যায়নি। শেষ বিকেলে সৌম্যর উইকেটটিই সান্তনা সাইফউদ্দীনের (১১-১-৪২-১)। তাসকিন সকালের সেশনে ভাল বল করলেও সময় গড়ানোর সাথে সাথে ম্রিয়মান হয়েছেন।

তারপরও ১১ ওভারে ২ মেডেনসহ ৪২ রানে ৩ উইকেট শিকারী তাসকিনই দিনের সেরা বোলিং পারফরমার। এছাড়া অকেশনাল অফস্পিনার মিঠুন ৩ ওভারে ১০ রানে দুটি উইকেট পেয়ে নাজমুল হোসেন শান্ত বাহিনীর লোয়ার অর্ডারে আঘাত হেনেছেন। বাকি বোলারদের মধ্যে বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুল (২৬-৪-৭৬-১) আর দুই পেসার আল আমিন (১০-৩-৩৬-১)ও খালেদের (১১-১-৩১-০ ) কারো বলেই ধার ছিল না। নির্বীষ বোলিং করেছেন তারা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
Customized BY NewsTheme