1. admin@coxtimes.com : admin :
শিরোনাম :
সচেতনতায় পুলিশ মাঠে…. করোনার প্রাদুর্ভাব বাড়লেও ঈদগাঁওতে বাড়েনি মানুষের মাঝে সচেতনতা ঈদগাঁওর জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মাঠ পর্যায় ইউএনও ঈদগাঁওর বাঁশঘাটায় তিনটি দোকান সিলগালা বাঁশখালী ছনুয়ার মানুষের যোগাযোগ সড়কের বেহাল দশা অবসানের পথে ইসলামাবা‌দের আ‌লো‌চিত জবর মুল্লুক হত্যা মামলার আসামী‌দের রিমা‌ন্ডে নি‌তে গ‌ড়িম‌সি পু‌লি‌শের ! ঈদগাঁও বাজা‌রে সড়‌কের উপর দোকান নির্মাণ, ভূ‌মি অ‌ফি‌সের নি‌ষেধাজ্ঞা ইসলামের প্রচার-প্রসারে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি: শেখ হাসিনা। হ্নীলার দালাল আবছার রোহিঙ্গা নারীসহ বিমানবন্দরে আটক। জনগণের দুর্ভোগ লাগব করতে দ্রুত টেকসই সড়ক উপহার দিবো -কউক চেয়ারম্যান বিষপানে পুত্রবধূ নাসরিনের আত্মহত্যা সাংসদের ওয়ার্ডের রাস্তার ইট বিক্রি করে দিল মেম্বার! ইসলামবাদে (ব্র্যাক)আইন সহায়তা বিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় কঠোর জেলা প্রশাসন।

  • আপডেট টাইম: Friday, November 27, 2020
  • 94 বার পড়া হয়েছে

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ
কক্সবাজারে বেড়াতে আসা পর্যটকরা মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। স্থানীয়রাও এ ব্যাপারে উদাসীন। কেউই ব্যবহার করছে না মাস্ক। স্বাস্থ্যবিধি রক্ষা ও মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রচারণার পাশাপাশি করা হচ্ছে জেল জরিমানা। করোনাভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাব্য সেকেন্ড ওয়েভ প্রতিরোধে মাঠে নেমেছে কক্সসবাজার জেলা প্রশাসন। গত রবিবার (২২ নভেম্বর) সকাল থেকে দিনব্যাপী লাবনী, সুগন্ধা ও কলাতলী তিনটি পয়েন্টে (ভ্রাম্যমাণ আদালত) অভিযান পরিচালনা করা হয়। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আল আমিন মো. পারভেজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসরামে ও চারজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সমন্বয়ে এ কার্যক্রম পরিচালিত হয়। অভিযানে ১৪ জনকে বিভিন্ন অংকে জরিমানা করা হয়েছে।
এসময় শহরের কলাতলী বীচ এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরান জাহিদ খান ১৭ টি মামলায় মোট ২,৩০০ টাকা অর্থদন্ড প্রদান করেন।
সুগন্ধা বীচে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মুরাদ ইসলাম মাস্ক না পরার দায়ে ০৭ জনকে মোট ১,৯০০ টাকা জরিমানা করেন।
সৈকতের লাবণী বীচ পয়েন্টে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাদিয়া সুলতানা। তিনি ১৮ টি মামলায় মোট ১,৮২০ টাকা অর্থদÐ প্রদান করেন।
লাবনী, সুগন্ধা ও কলাতলী তিনটি পয়েন্টে (ভ্রাম্যমাণ আদালত) অভিযান পরিচালনা করা হয় ৪২ টি মামলায় ৬ হাজার ২০ টাকা অর্থদÐ প্রদান করা হয়।
অভিযান পরিচালনার সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (পর্যটন সেল) ইমরান জাহিদ খান বলেন, করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষার্থে মাস্ক বাধ্যতামূলকের চলমান অভিযানে জেল-জরিমানার তুলনায় প্রচারণাকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। জেলাবাসী ও বেড়াতে আসা পর্যটকের নিরাপত্তায় এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আল আমিন মো. পারভেজ বলেন, একটি কার্যকর ভ্যাকসিন আবিষ্কার ও সহজলভ্য হবার আগে পর্যন্ত করোনাভাইরাসের সংক্রমনের সম্ভাব্য দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় ব্যক্তিগত সতর্কতা তথা মাস্ক পরিধান করা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নেই। জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে জেলা প্রশাসনের এ প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। নিজের ও দেশের স্বার্থে সচেতন হোন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক পরিধান করুন। পৌরসভার বাইরে বিভিন্ন উপজেলায়ও একযোগে পরিচালিত হয়েছে মোবাইল কোর্ট।
চকরিয়া উপজেলায় ১৩ টি মামলায় ১,৯০০ টাকা, কুতুবদিয়া উপজেলায় ৩১ জনকে ২৪৩০ টাকা এবং মহেশখালী উপজেলায় ১৬ জনকে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের দায়ে ৪, ১০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মোবাইল কোর্ট চলাকালে দÐ প্রদানের পাশাপাশি স্বল্প সামর্থ্যের ব্যক্তিদের মধ্যে বিনামুল্যে মাস্ক বিতরণ এবং মাস্কবিহীন চলাচলকারী সকলকে মাস্ক ব্যবহার করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে জেলা প্রশাসন আরও কঠোর আইন প্রয়োগে বাধ্য হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
Customized BY NewsTheme